Hits: 16

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
বান্দরবানে পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত  হয়েছে। সদর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের ১টিতে আওয়ামী লীগ, ১টিতে বিদ্রোহী ও ১টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয় হয়েছে।

পঞ্চম ধাপে বান্দরবান সদর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এ তিনটি টি ইউনিয়নে ১টিতে আওয়ামী লীগ, ১টিতে বিদ্রোহী ও ১টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছে।

বেসরকারি ফলাফলে প্রাপ্ত বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন-কুহালং ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকের মংপ্রু মার্মা, সুয়ালক ইউনিয়নে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী উক্যনু মার্মা এবং টংকাবতী ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মাংয়ং ম্রো (প্রদীপ)।

সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এই নির্বাচনে নারী পুরুষের দীর্ঘ লাইন ও সরব উপস্থিতি ছিল। আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী, নির্বাচনী কর্মকর্তা নিরপেক্ষ দায়িত্ব পালনের কারণে এলাকার মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছে বলে জানিয়েছেন সাধারণ ভোটাররা।

এদিকে বিচ্ছিন্ন সহিংসতায় পঞ্চম ধাপে ৭০৭টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। দেশের ৪৮ জেলার ৯৫টি উপজেলায় একযোগে বুধবার ( ৫ জানুয়ারি) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এসব কেন্দ্রের রাতে ফলাফল ঘোষণা শুরু হয়েছে।

ভোটগ্রহণ সামনে রেখে আগেই নির্বাচনী এলাকায় পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি ও কোস্টগার্ডের সদস্যরা মাঠে ছিলেন। এ ছাড়া আচরণবিধি দেখভাল করতে জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরাও ছিলেন। বেশ কিছু স্থানে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের ঘটনায় সংঘর্ষে কমপক্ষে ৬ জন নিহতের খবর পাওয়া গেছে।

নির্বাচন কমিশন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ ধাপের নির্বাচনে ৪৮ জন চেয়ারম্যানসহ ১৯৩ জন জনপ্রতিনিধি বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন। তাদের মধ্যে সংরক্ষিত পদের সদস্য ৩৩ জন এবং সাধারণ সদস্য ১১২ জন। বাকি পদগুলোতে ভোট বুধবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, এ ধাপে ৭০৭টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৪০টিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ করা হয়। বাকিগুলোতে ব্যালটে ভোট হয়। এতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৩৬ হাজার ৪৫৭ জন প্রার্থী। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান ৩ হাজার ২৭৪ জন, সংরক্ষিত সদস্য ৭ হাজার ৯৫০ এবং সাধারণ সদস্য ৩৯ হাজার ৩৯১ জন। এ ধাপে মোট ভোটার সংখ্যা ১ কোটি ৪২ লাখ ২০ হাজার ১৯৫ জন। এরমধ্যে নারী ভোটার ৬৮ লাখ ৩৬ হাজার ৩১ জন ও পুরুষ ৭০ লাখ ৬০ হাজার ১৪০ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার ২১ জন।

গত বছর ২১ জুন ও ২০ সেপ্টেম্বর প্রথম ধাপের দুই দফায় ৩৬৯টি, ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে ৮৩৩টি, ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে এক হাজার এবং ২৩ ডিসেম্বর চতুর্থ ধাপে ৮৪০টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

Leave a Reply